শিশু শাওন নির্যাতনের বর্ণনা দিলেন

রাজধানীর ইস্কাটন গার্ডেনের বাসায় নির্যাতনের শিকার গৃহকর্মী শিশু জাহিদুল ইসলাম শাওন আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে তাকে যেভাবে নির্যাতন করেছেন তার বর্ণনা দিয়েছেন।

বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে শাওনকে হাজির করে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা রমনা থানার ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) সফিকুল ইসলাম। এ সময় ভিকটিম হিসেবে তার জবানবন্দি (২২ ধারা) রেকর্ড করার আবেদন করেন তিনি। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম মাহমুদা বেগম তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

অপরদিকে ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ (শিশু আদালত) আদালতে শাওনকে জিম্মা নেয়ার আবেদন করেন তার বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন কালু। শিশু আদালতের বিচারক আল মামুন আবেদনটি মঞ্জুর করে শাওনকে তার বাবা জিম্মায় প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, গত ২০ জুন ১২ বছরের শিশু গৃহকর্মী শাওনকে নির্যাতনের অভিযোগে রাজধানীর ইস্কাটন গার্ডেন এলাকার একটি বাসা থেকে তিনজনকে গ্রেফতার করে রমনা থানার পুলিশ। এলাকার একজন বাসিন্দা ৯৯৯-এ ফোন করে নির্যাতনের কথা জানালে শাওনকে উদ্ধার করা হয়।

শাওনের হাত-পা, পিঠ, পায়ের তলায় ভোতা অস্ত্র দিয়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার বয়স ১২ বছর। সে ওই বাসায় ৭ মাস ধরে কাজ করছিল। পরের দিন রমনা থানার উপ-পরিদর্শক মোশারফ হোসেন বাড়িওয়ালাসহ পাঁচজনের নামে একটি মামলা করেন।

পাঁচ আসামি হলেন- ইকবাল হোসেন (গৃহকর্তার শ্যালক), তার স্ত্রী তামান্না খান, তানজিলুর রহমান (ইকবালের ভাগ্নে ও গৃহকর্তার ছেলে), বাড়িওয়ালা মোজাফ্ফর হোসেন ও তার স্ত্রী তাহমিনা খানম মিলি।

ঘটনাস্থল থেকে ইকবাল (গৃহকর্তার শ্যালক), তার স্ত্রী তামান্না খান ও তানজিলুর রহমান (ইকবালের ভাগ্নে ও গৃহকর্তার ছেলে) গ্রেফতার করে পুলিশ।

২১ জুন তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা। ঢাকা মহানগর হাকিম মাহমুদা বেগম রিমান্ড নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ২৪ জুন ঢাকা মহানগর হাকিম গোলাম নবী পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় গ্রেফতার তিনজনের জামিন মঞ্জুর করেন।

image_printপ্রিন্ট

শেয়ার

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।