নির্বাচনী দিক-নির্দেশনা দেবেন শেখ হাসিনা বর্ধিত সভায় নেতাকর্মীদের

আর মাত্র দু’দিন পর আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এবার দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নতুন কিছু মাত্রা যোগ করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে নবনির্মিত দলের ১০ তলা ভবন উদ্বোধনও করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ভবনের উদ্বোধন করবেন।

এছাড়া এদিন আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভার আহ্বান করা হয়েছে। এ সভা থেকে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতাকর্মীদের বিশেষ দিক নির্দেশনা দেবেন। আগামী নির্বাচন সামনে রেখে নেতাকর্মীদের করণীয় কি হবে সে বিষয়ে নির্দেশনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচন দরজায় কড়া নাড়ছে। ফলে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীদের মধ্যেও নড়াচড়া শুরু হয়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই। নির্বাচন সামনে রেখেই আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভার আহ্বান করা হয়েছে।

২৩ জুন বেলা ১১টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, যেকোন দলের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে বা কোনো গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা দিতে সাধারণত বিশেষ জরুরি সভার আয়োজন করা হয়।

এছাড়া এ সভায় সরকারের উন্নয়ন প্রচার, অভ্যন্তরীণ কোন্দল নিরসন, বিএনপি-জামাতের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড জনগণের সামনে তুলে ধরা এবং বিগত সরকারের সঙ্গে বর্তমান সরকারের তুলনামূলক উন্নয়ন চিত্র তুলে নৌকার পক্ষে ব্যাপক জনমত গঠনের নির্দেশনা দেয়া হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দলের মধ্যে যারা ভাঙন সৃষ্টি করছে বা দ্বন্দ্ব জিয়ে রাখছে তাদের বিষয়েও নির্দেশনা থাকবে। বিশেষ করে আগামী নির্বাচনে মনোনয়নের বাইরে যদি কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হতে চায় তাদের বিষয়ে কঠোর নির্দেশনা থাকবে। কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হলে তাকে দল থেকে সারাজীবনের জন্য বহিষ্কারের নির্দেশনাও আসতে পারে।

আওয়ামী লীগ নেতারা জানান, এই সভায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ, জাতীয় কমিটির সদস্য, জেলা/মহানগর, উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, দলীয় জাতীয় সংসদ সদস্যরা, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ+মহিলা), সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভার দলীয় মেয়র, সকল মহানগরের অন্তর্গত প্রতিটি থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং সকল সহযোগী সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত থাকবেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান বলেন, যেহেতু আগামী ডিসেম্বর নাগাদ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে সেহেতু দলের সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা দেবেন।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন না পেয়ে যদি কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হয় তাদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ হওয়ার নির্দেশনা আসতে পারে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বর্ধিত সভায় সম-সাময়িক রাজনীতি, নির্বাচনে দলীয় ঐক্য অটুট রাখা, জনসংযোগ বৃদ্ধি করা, দলের তৃণমূল নেতাদের ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনে কাজ করার বিষয়ে দিক নির্দেশনা দেয়া হবে।

এছাড়া সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সমূহ জনসম্মুখে তুলে ধরা, বিএনপি-জামাতের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড জনগণের সামনে তুলে ধরা এবং বিগত সরকারের সঙ্গে বর্তমান সরকারের তুলনামূলক উন্নয়ন চিত্র তুলে নৌকার পক্ষে ব্যাপক জনমত গঠনের নির্দেশনাও দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটি নির্বাচিত হওয়ার পরে এটিই হলো দ্বিতীয় বিশেষ বর্ধিত সভা। এর আগে গত বছর ২০ মে গণভবনে আরেকটি বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

image_printপ্রিন্ট

শেয়ার

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।